History

বর্ণমালা বিদ্যাপীঠ-পথ পরিক্রমা

জীবনের জন্য শিক্ষা হোক
মানুষ – সমাজ – দেশ আর বিশ্বলোক

যুগোপযোগী ও আধুনিক শিশু শিক্ষায়তন


সুদীর্ঘকাল থেকে পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলা শিক্ষা-দীক্ষায় অন্যান্য এলাকা থেকে
অপেক্ষাকৃত অগ্রসর। মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষার গুরুত্ব উপলব্ধি করে এ অঞ্চলের মানুষ, শিক্ষানুরাগী
বিশেষ করে বিদ্যালয়ে ভর্তি উপযোগী শিক্ষার্থীর অভিভাবকগণ গতানুগতিক সেকেলে শিক্ষা কৌশলের
বাইরে নতুনতর শিক্ষা পরিবেশের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠে। উপজেলার একেবারে প্রান্তে যাদের বাস
তারাও সন্তানদের উপজেলা সদরে প্রতিষ্ঠিত কিন্ডার গার্টেন বা প্রাইভেট  ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত
শিক্ষালয়ের দিকে ঝুঁকতে শুরু করে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় পরিচালিত প্রাইমারী স্কুল গুলো সম্পূর্ণ
অবৈতনিক হলেও অভিভাবকগণ বেশী অর্থের বিনিময়ে হলেও উন্নত ও আকর্ষণীয় পরিবেশে সন্তানদের
শিক্ষা নিশ্চিত করতে চায়। এমন একটি প্রেক্ষিতে প্রাইভেট স্কুল ভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রমে যুক্ত হওয়ার
সুদূরপ্রসারী লক্ষ্যে উপজেলা সদরে একটি কিন্ডারগার্টেন প্রতিষ্ঠার কথা চিন্তা করেন বোদা মহিলা
মহাবিদ্যালয়ের প্রভাষক আবু হেনা মোঃ মোবিনুল ইসলাম কাজল। এ লক্ষ্যে ২০০৬ সালের জুনে তাঁর
আহবানে আয়োজিত সভায় ৯ সদস্য বিশিষ্ট “কিন্ডার গার্টেন প্রতিষ্ঠা কমিটি” গঠিত হয়।


শুরু হয় কিন্ডার গার্টেন প্রতিষ্ঠার কাজ। একটি নির্দিষ্ট কার্যক্রমটি চালুর লক্ষ্যে বোদা
মহিলা মহাবিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে অস্থায়ীভাবে সকাল ৭.৩০ টা হতে ৯.৩০ টা পর্যন্ত (মহাবিদ্যালয়ের
ক্লাশ চালুর পুর্ব পর্যন্ত) সময়ে কাজ করার আবেদনে তৎকালীন অধ্যক্ষ ও গর্ভনিং বডি সম্মতি প্রদান
করে। সে বছরই কিন্ডার গার্টেন প্রতিষ্ঠা কমিটির সভায় প্রতিষ্ঠানটির নাম “বর্ণমালা কিন্ডার গার্টেন”
এবং প্রতিষ্ঠানটির প্রধান বা অধ্যক্ষ হিসেবে আবু হেনা মোঃ মোবিনুল ইসলামের নাম চূড়ান্ত হয়। সে
মোতাবেক ২০০৬ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রতিষ্ঠানটি ২০০৭ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।
প্রথম শিক্ষাবর্ষে ৯৭ জন শিক্ষার্থী ও ৬ জন শিক্ষক নিয়ে বর্ণমালা কিন্ডার গার্টেন কার্যক্রম শুরু করে।


সেই থেকে পথ চলা, এগিয়ে চলা। দীর্ঘ ১৩ বছর প্রতিষ্ঠানটি বোদা মহিলা মহাবিদ্যালয়ে
ক্যাম্পাসে পরিচালিত হয়ে আসছিল। কিন্তু একটা পর্যায়ে নিজস্ব ভবনে প্রতিষ্ঠানটিকে স্থানান্তরের
সিদ্ধান্ত হয়। সে মোতাবেক কাজ শুরু হলে প্রাথমিকভাবে কিছু সমস্যায়ও পড়তে হয়। এমন একটি
অবস্থায় এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আশা এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারী মোঃ আরিফ হোসেন আপেল
এগিয়ে আসেন। বর্ণমালা কিন্ডার গার্টেনের অভিভাবক সদস্য মোঃ জাভেদ মজুমদারের প্রস্তাবে এবং
সহায়তায় প্রতিষ্ঠানটিকে আধুনিক এবং মানসম্মত অবকাঠামো ও সুযোগ-সুবিধাসহ গড়ে তোলার
সিদ্ধান্ত হয়। আর এর জন্য সার্বিক সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসেন মোঃ আরিফ হোসেন আপেল
এবং তাঁর পিতা বোদা বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মোঃ আজাহার আলী। বোদা থানা পাড়াস্থ
আশা টাওয়ারের নির্মাণাধীন ভবনে ক্যাম্পাস নির্ধারণ করে শুরু হয় বর্ণমালা কিন্ডার গার্টেনকে
সম্প্রসারিত কলেবরে নেয়ার কাজ। এই বিশাল কর্মযজ্ঞে সার্বিক দিক-নির্দেশনার জন্য গঠিত হয় ১০
সদস্য বিশিষ্ট বাস্তবায়ন কমিটি।

NamePost
মো: আজাহার আলীসভাপতি
মো: আশরাফুল আলমসদস্য
মো: আব্দুর রশিদসদস্য
প্রবীর কুমার চন্দসদস্য
মো: ইব্রাহীম খলিলসদস্য
মো: আরিফ হোসেন আপেলসদস্য
মো: জাভেদ মজুমদার খসরুসদস্য
মুনমুন সেন রায়সদস্য
তাজমিরা তানমিনসদস্য
আবু হেনা মো: মোবিনুল ইসলামসম্পাদক


বাস্তবায়ন কমিটির প্রথম সভায় প্রতিষ্ঠানটির সম্প্রসারিত শিক্ষা কার্যক্রমের লক্ষ্যে বর্ণমালা
কিন্ডারগার্টেন কে ‘‘বর্ণমালা বিদ্যাপীঠ” নামকরণ করা হয়। সভায় প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান মোঃ
আজাহার আলী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আরিফ হোসেন আপেল, অধ্যক্ষ হিসেবে আবু হেনা মোঃ
মোবিনুল ইসলাম এর নাম চুড়ান্ত হয়। গত ৩ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে বিদ্যায়তনটির পূনর্যাত্রা শুরু
হয়। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের রেলপথ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব নূরুল ইসলাম সুজন
এমপি, বর্ণমালা বিদ্যাপীঠ এর নবনির্মিত ক্যাম্পাসের শুভ উদ্বোধন করেন। আমাদের আগামী দিনের
ভাবনা- প্রতিষ্ঠানটিকে পর্যায়ক্রমে উচ্চ মাধ্যমিকে উন্নীত করা এবং সম্পূর্ণ আবাসিক ব্যবস্থা চালু করা।