Aim & Objectives

প্রাককথন


“ জীবনের জন্য শিক্ষা হোক
মানুষ – সমাজ – দেশ আর বিশ্বলোক ”


এই শ্লোগান নিয়ে বর্ণমালা
বিদ্যাপীঠ-প্রতিষ্ঠা। পুস্তকভিত্তিক শিক্ষা ও সহপাঠ্য সন্নিবেশে একটি সামস্টিক শিক্ষা ব্যবস্থাপনাকে
এগিয়ে নিচ্ছে এ বিদ্যায়তনটি। কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জনে বর্ণমালার ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানের সকল
কার্যক্রমে চলতি মান মূল্যায়ন সাপেক্ষে ভবিষ্যৎমূখী কর্মসূচি আত্তীকরণে নীতিগতভাবে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।
চলতি দুনিয়ার অন্যতম যোগাযোগ ও কর্মযজ্ঞ যে প্রযুক্তি ব্যবহারের নতুন নতুন দিগন্ত উন্মোচন
করছে-যা বর্ণমালা বিদ্যাপীঠ তার শিক্ষার্থীদের হাতের নাগালে আনতে চায়। তথ্য-প্রযুক্তি নির্ভর এ
সভ্যতায় সম্ভাবনার এ যুগে তথ্য-প্রযুক্তির সাথে শিক্ষার্থীদের বিশেষ সংযোগ ও সখ্যতা জরুরি। আর
এর মাধ্যমে শিশুর চিন্তা ও সৃজনশীলতার পরিস্ফূটন ঘটবে। বিদ্যমান শিক্ষা ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম ও
লাগসই পদ্ধতির সাথে তথ্য-প্রযুক্তির মেলবন্ধনেই গড়ে উঠবে নতুন প্রজন্মের শিক্ষা বুনিয়াদ। একটি
শিশুর মন-জ্ঞান-সৃজনশীলতা ও ব্যবহারিক দক্ষতা তৈরির জন্য ইতিবাচক পরিবেশ ও প্রতিবেশ তৈরি
করা একান্ত প্রয়োজন। শিক্ষার্থীর অক্ষীর সম্মুখে বস্তুগত ও অবস্তুগত ইতিবাচক আবহ তৈরির প্রয়াসে
বর্ণমালা বিদ্যাপীঠ সদা সচেষ্ট। কারণ, আমরা শুধু গ্রন্থকীট তৈরি করতে চাই না, আমরা চাই মানুষ ও
সমাজ সংবেদনশীল জ্ঞানী মানুষ তৈরির প্রাথমিক পাঠ নিশ্চিত করতে।


শিক্ষার্থীর শৈশব থেকে পরিণত হওয়ার প্রক্রিয়ায় তার কৌতুহলী মন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমরা
শিক্ষার্থীর কৌতুহলীকে গুরুত্ব দিতে চাই। কৌতুহলই শিক্ষার্থীকে শেষ বিচারে সফল মানুষে পরিণত
করতে পারে। আমাদের আকাঙ্খা শিক্ষার্থীদের মানবিক এবং সংবেদনশীল সম্পূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে
তুলতে।